সুইডিশ রাজ পরিবারের উত্তরাধিকারী রাজকুমারী ভিক্টোরিয়া তার বিয়েতে প্রথমবারের মতো কাঁধ খোলা গাউন পরেছিলেন।

Read More


রানী ভিক্টোরিয়া একবার একটি সাদা পোশাক পছন্দ করেছিলেন যা তৈরী হয়েছিলো ইংলিশ সিল্ক ও লেস দিয়ে এবং তখন থেকেই সেদেশে বিয়েতে সাদা পোশাকের চল শুরু হয়েছিলো।

Read More


১৯৫৪ সালে রাণী প্রথম মেরী বেগুনী রঙের বিয়ের পোশাক পড়েছিলেন যা শুধু রাজপরিবারের সদস্যরাই পরতেন।

Read More


ব্রিটিশ রাজ পরিবারে শিশুর জন্মের বিষয়ে সাক্ষী হিসাবে একজন প্রত্যক্ষদর্শী রাখার প্রথাটি প্রিন্স চার্লসের জন্মের আগে বাতিল হয়ে যায়।

Read More


ইংল্যান্ডের রাজ পরিবারের নিয়মানুযায়ী রাজশিশুর জন্ম যেকোনো ভাবে রাজপরিবারের জমিতেই হওয়ার নিয়ম চালু থাকলেও প্রথম এই নিয়ম ভঙ্গ করেন প্রিন্সেস ডায়ানা। উইলিয়াম ও হ্যারি দুজনেরই জন্ম হয় বেসরকারি হাসপাতালে।

Read More


ইংল্যান্ডে রাজশিশুর জন্ম যেকোনো ভাবে রাজপরিবারের জমিতেই হতে হবে। রাজপরিবারে চলে আসা নিয়ম অনুযায়ী শিশুদের জন্মের জন্য তাদের বাড়িকেই সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হতো।

Read More


ভারতের কেরালা অঙ্গরাজ্যের ত্রিভাঙ্কুরের রাজার করের বিনিময়ে স্তন ঢাকার বর্বর ও ঘৃণিত করটির নাম ছিলো “স্তনশুল্ক” (Breast Tax), স্থানীয় ভাষায় যা পরিচিত ছিলো ‘মুলাক্করম’ (Mulakkaram) নামে।

Read More


ভারতের কেরালা অঙ্গরাজ্যের ত্রিভাঙ্কুরের রাজার অদ্ভুত অদ্ভুত সব করের প্রচলনের মধ্যে সবচেয়ে অদ্ভুত এবং বর্বর কর আরোপ করা হয়েছিলো তখনকার নিম্নবর্ণের নারীদের উপর। নিয়ম ছিলো, নারীদের কেউই তাদের স্তন ঢেকে রাখতে পারবেন না। অনাবৃত করে রাখতে হবে। শুধু ব্রাহ্মণ নারীদের অনুমতি ছিলো, এক টুকরা সাদা কাপড়ে তারা স্তন ঢাকতে পারতো। কিন্তু, বাকিরা পারতো না। আইন ছিলো […]

Read More


ভারতের কেরালা অঙ্গরাজ্যের ত্রিভাঙ্কুরের (এখনকার কেরালা ও তামিলনাড়ুর কিছু অংশ) রাজার অদ্ভুত অদ্ভুত সব করের মধ্যে একটি হলো-পুরুষদের মধ্যে যদি কেউ গোঁফ রাখতে চায়, তবে তাকে তার গোঁফের জন্য কর দিতে হবে।

Read More


১৭২৯ -১৯৪৯ সাল পর্যন্ত রাজত্ব করা ভারতের কেরালা অঙ্গরাজ্যের ত্রিভাঙ্কুরের (এখনকার কেরালা ও তামিলনাড়ুর কিছু অংশ) রাজা অদ্ভুত অদ্ভুত সব করের প্রচলন শুরু করেছিলেন। অলঙ্কার পরিধানের উপর কর আরোপিত ছিলো। কেউ যদি অলঙ্কার পড়ে এর জন্যে তাকে কর দিতে হতো।

Read More