ইউরোপের দক্ষিণ-পশ্চিমে ফ্রান্স এবং স্পেনের সীমান্তে পিরিনিজ পর্বতমালার ঢালে অবস্থিত দেশ আন্দরার বয়স প্রায় ১ হাজার বছর হলেও যুদ্ধ-বিগ্রহে জড়ানোর কোনো রক্তাক্ত ইতিহাস নেই।

Read More


সিঙ্গাপুর এর জাতির পিতা লি কুয়ান ইউ আমৃত্যু ছিলেন “পিপলস অ্যাকশন পার্টির” সাধারণ সম্পাদক। ১৯৯০ সালে নতুন প্রজন্মের হাতে ক্ষমতা ছাড়বার পরও জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী, মেন্টর ইত্যাদি ভূমিকায় অংশ হয়ে ছিলেন মন্ত্রীসভারও।

Read More


বর্তমানে সিঙ্গাপুরের মাথাপিছু আয় প্রায় ৫৩ হাজার মার্কিন ডলার (প্রায় ৪৫ লক্ষ বাংলাদেশি টাকা)। বিশ্বে সম্ভবত সিঙ্গাপুরই একমাত্র দেশ, যার একটি গোটা প্রজন্ম নিজ দেশকে তৃতীয় বিশ্ব থেকে প্রথম বিশ্বে উন্নীত হতে দেখেছে চর্মচক্ষে।

Read More


“ব্যাটল অব ইয়ো জিমা” যুদ্ধ সংগঠিত হবার সময় প্রতি স্কয়ার ফুটে যত বোমা বর্ষণ করা হয়েছে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় তা আর কোথাও বা কখনো হয়নি।

Read More


জাপানে ইয়ো জিমা নামে একটি আগ্নেয়দ্বীপ আছে যেখানে ব্যাটল অব ইয়ো জিমা সংঘটিত হয়েছিলো এবং এটি  ছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে  অন্যতম রক্তক্ষয়ী এক যুদ্ধ।

Read More


এক সময় ১৬ একর আয়তনের হাশিমা দ্বীপ বা গুনকাজিমা দ্বীপের জনসংখ্যা ৫,০০০ হয়ে গেলে তখন এটি পৃথিবীর সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ স্থানে পরিণত হয়।

Read More


হাশিমা দ্বীপ বা গুনকাজিমা দ্বীপের তলদেশে কয়লার সন্ধান পাওয়া গিয়েছিল।  কয়লা উত্তোলনের দায়িত্বপ্রাপ্ত মিৎসুবিশি  কোম্পানি দেখলো কাজের সুবিধের জন্য দ্বীপে শ্রমিক ও তাদের পরিবারের বাসস্থান তৈরি করা হলে তা বেশি লাভজনক। ফলে মাত্র একটি ফুটবল মাঠের মতো জায়গায় বহুতল অ্যাপার্টমেন্ট ভবন, স্কুল, মন্দির, রেস্তোরাঁ, বাজার, এমনকি কবরস্থানও গড়ে তোলা হয়।

Read More


জাপানী উপকূল থেকে নয় মাইল দূরে পূর্ব চীন সাগরে অবস্থিত হাশিমা দ্বীপ বা গুনকাজিমা এর অর্থ হলো যুদ্ধজাহাজ। দ্বীপটি পরিত্যক্ত ভবন, ছড়ানো ধ্বংসাবশেষ আর নিস্তব্ধ ভৌতিক পরিবেশের জন্য পরিচিতো।

Read More


জেমস বন্ডের ছবি স্কাইফলের প্রধান খলনায়ক রাউল সিলভার চরিত্রে জেভিয়ার বার্ডেমকে সিনেমাটিতে ভাঙা অট্টালিকা ভরা এক মহাসাগরীয় দ্বীপের অধিকারী হিসেবে দেখানো হয়। পরিত্যক্ত ভবন, চারদিকে ছড়ানো ধ্বংসাবশেষ আর নিস্তব্ধ ভৌতিক পরিবেশের দ্বীপটি কিন্তু বাস্তবে সত্যিই আছে এবং এর নাম হাশিমা দ্বীপ বা গুনকাজিমা।

Read More


১৯৮৬ সালের এপ্রিল মাসে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত ইউক্রেনের চেরনোবিলে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের একটি চুল্লিতে বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণ থেকে সৃষ্ট আগুন ১০ দিন পর্যন্ত স্থায়ী ছিল। সেইসঙ্গে ১৯৪৫ সালে হিরোশিমায় ফেলা পারমাণবিক বোমার চেয়েও ৫০০ গুণ বেশি পারমাণবিক দূষণ ছড়িয়ে পড়ে পরিবেশে।

Read More