ব্রিটিশ রাজ পরিবার কনের বিয়ের পোশাকের ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম সবসময় মেনে চলে। যেমন বিয়ের পোশাকের ক্ষেত্রে কনের হাঁটু দেখা যাওয়া যাবে না এবং পুরো পা একদম ঢাকা থাকতে হবে।

Read More


রানী ভিক্টোরিয়া একবার একটি সাদা পোশাক পছন্দ করেছিলেন যা তৈরী হয়েছিলো ইংলিশ সিল্ক ও লেস দিয়ে এবং তখন থেকেই সেদেশে বিয়েতে সাদা পোশাকের চল শুরু হয়েছিলো।

Read More


১৯৫৪ সালে রাণী প্রথম মেরী বেগুনী রঙের বিয়ের পোশাক পড়েছিলেন যা শুধু রাজপরিবারের সদস্যরাই পরতেন।

Read More


ভারতের অাসাম, নাগাল্যান্ড, মেঘালয় এবং বাংলাদেশে বিভিন্ন স্থানে বসবাস করা মান্ডি উপজাতিদের প্রায় ২০ লাখ মানুষের মধ্যে রয়েছে এক অদ্ভুত প্রথা। এখানে মায়ের সতীন হয় মেয়ে! এই সম্প্রদায়ের মেয়েদের বিয়ে করে শ্বশুরবাড়ি ‌যেতে হয় না। নিজের বাবাকেই তারা বিয়ে করেন। শুনতে অদ্ভুত কিংবা ভাগ্যের নির্মম পরিহাস হলেও এটাই সত্যি। এটাই তাদের রীতি।

Read More


ব্রিটিশ রাজ পরিবারে শিশুর জন্মের বিষয়ে সাক্ষী হিসাবে একজন প্রত্যক্ষদর্শী রাখার প্রথাটি প্রিন্স চার্লসের জন্মের আগে বাতিল হয়ে যায়।

Read More


ব্রিটিশ রাজ পরিবারে শিশু জন্মানোর সময়, শিশুটি আসলেই জন্মাচ্ছে কিনা, এ বিষয়ে সাক্ষী হতে একজন প্রত্যক্ষদর্শী রাখা হতো। তিনি শিশু জন্মের পুরোটা সময় আঁতুড়ঘরে থেকে নিশ্চিত করতেন শিশু জন্মের ঘটনাটি সত্য।

Read More


সন্তান জন্মদানের ক্ষেত্রে কেট মিডলটন ব্রিটিশ রাজ পরিবারের নিয়ম রক্ষা করতে চাইলেও বিভিন্ন জটিলতার কারণে শেষ মুহূর্তে কেটকে সিদ্ধান্ত বদলাতে হয় এবং হাসপাতালে সন্তান জন্ম দিতে হয়। উইলিয়াম ও হ্যারি এই দুজনেরই যে বেসরকারি হাসপাতালে জন্ম হয়, কেট মিডলটনের সন্তানেরও সেই একই হাস্পাতালে জন্ম হয়।

Read More


ইংল্যান্ডের রাজ পরিবারের নিয়মানুযায়ী রাজশিশুর জন্ম যেকোনো ভাবে রাজপরিবারের জমিতেই হওয়ার নিয়ম চালু থাকলেও প্রথম এই নিয়ম ভঙ্গ করেন প্রিন্সেস ডায়ানা। উইলিয়াম ও হ্যারি দুজনেরই জন্ম হয় বেসরকারি হাসপাতালে।

Read More


ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতপ্রাপ্ত ব্রাজিলের ফার্নান্দো দে নরোনহা দ্বীপটি কোন পৌরসভা বা প্রশাসনের অধীনে নেই। যা আধুনিক বিশ্বে বিরল।

Read More


ব্রাজিলের দ্বীপ ফার্নান্দো দে নরোনহাতে একটি মাত্র হাসপাতালে আছে যেখানে মায়েদের প্রজনন স্বাস্থ্য বিভাগ নেই বলে কোন ধরনের জটিলতা তৈরি হওয়ার ভয়ে সেখানে প্রসবের উপরে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই গর্ভবতীদের দ্বীপের বাইরের কোন হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলা হয়েছে।  

Read More