ক্যাটাপুল্ট সিস্টেমের মাধ্যমে একটি ২০ টন ভরের বিমান ০ থেকে ২৬৫ কি.মি./ঘন্টা গতি লাভ করে মাত্র ২ সেকেন্ডে! এসময় একজন পাইলট মধ্যাকর্ষণের ৪ গুন চাপ অনুভব করেন, যা বিশ্বের সবচেয়ে বেশি গতির রোলার কোস্টারের থেকে দ্বিগুণ।

Read More


প্রতিটি ক্যাটাপুল্টে একটি করে রেইল ট্র্যাক ও শাটল থাকে। শাটলের মধ্যে বিমানের সামনের চাকা বা নোজ ল্যান্ডিং গিয়ার এমনভাবে আটকানো থাকে যাতে এটি ইঞ্জিন চালু থাকা সত্ত্বেও সামনে ও যেতে পারে না, পেছনেও আসতে পারে না। এরপর বিমানের ইঞ্জিনের পেছনে ‘জেট ব্লাস্ট ডিফ্লেকটর‘ নামে একটি শিল্ড যান্ত্রিক পদ্ধতিতে দাঁড় করানো হয়। ফলে জেট ইঞ্জিনের শক্তিশালী […]

Read More


মার্কিন ক্যারিয়ারগুলোর বো-তে দুটি ও পোর্ট সাইডে দুটি ক্যাটাপুল্ট সিস্টেম থাকে। ফলে এগুলো একসাথে দুটি এয়ারক্রাফটসহ ৪০ সেকেন্ড বিরতিতে ৪টি এয়ারক্রাফট লঞ্চ করতে পারে। ক্যাটাপুল্ট সিস্টেমের ডিজাইন এমনভাবে করা হয়েছে যেন একইসাথে দুটো এয়ারক্রাফট লঞ্চ করা যায় এবং একটি এয়ারক্রাফট যেন ল্যান্ড করতে পারে।

Read More


যেকোনো জাহাজের সামনের অংশকে ‘বো’ ও পেছনের অংশকে ‘স্টার্ন’ বলে। ডান ও বামের অংশকে যথাক্রমে স্টারবোর্ড সাইড ও পোর্ট সাইড বলে।

Read More


বর্তমানে CATOBAR শ্রেণীর এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ারগুলোর শুধুমাত্র যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সের কাছে আছে। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লিট ক্যারিয়ারের সবগুলোই এই শ্রেণীর।

Read More


Catapult-assisted take-off barrier arrested-recovery বা CATOBAR শ্রেণীর এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ারগুলোর ফ্লাইট ডেক আকারে তুলনামূলক বড় হয়। এ ধরনের ক্যারিয়ারে বিশেষ পদ্ধতিতে এয়ারক্রাফটকে অল্প সময়ে প্রচণ্ড গতি লাভ করার ব্যবস্থা করে দেয়া হয়। ফলে যুদ্ধবিমানগুলো তার সম্পূর্ণ সক্ষমতার অস্ত্র ও ফুয়েল নিয়ে টেকঅফ করতে পারে। এ ধরনের এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ারগুলো নিউক্লিয়ার শক্তিচালিত হয়ে থাকে।

Read More


আগের যুগে লাইট ক্যারিয়ার থেকে তুলনামূলক হালকা বিমানগুলো উড়তো। বর্তমানে এর জায়গায় এসেছে অ্যাটাক হেলিকপ্টার গানশিপ। তাই অনেক দেশেই অ্যাম্ফিবিয়াস অ্যাসল্ট শিপকে ‘হেলিকপ্টার ক্যারিয়ার’ নামে ডাকা হয়। এগুলো দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের লাইট ক্যারিয়ারের সমতুল্য।

Read More


বর্তমান সময়ে লাইট ক্যারিয়ার বলতে অ্যাম্ফিবিয়াস অ্যাসল্ট শিপকেও বোঝানো হয়। এ ধরনের জাহাজ সাধারণত জলপথে পৃথিবীর যেকোনো প্রান্তে গিয়ে মেরিন সেনা, ট্যাংক, আর্মাড ভেহিকেল ইত্যাদি পৌঁছে দেয়ার কাজ করে।

Read More


যুক্তরাষ্ট্রের ১ লাখ টনি ফ্লিট ক্যারিয়ারের সাথে অন্যান্য দেশের ফ্লিট ক্যারিয়ার (৬৫ হাজার থেকে ২১.৫ হাজার টন) এর তুলনা দিলে বাকি সবাইকে লাইট ক্যারিয়ার মনে হবে। এজন্য যুক্তরাষ্ট্রের ১ লাখ টনের বিশালাকায় এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ারগুলো ‘সুপার ক্যারিয়ার’ নামক নতুন শব্দ দ্বারা আলাদা করা হয়।

Read More


আধুনিক যুগের ৩ হাজার থেকে ১০ হাজার টনি ফ্রিগেট/ডেস্ট্রয়ার/ক্রুজার শ্রেণীর জাহাজের তুলনায় অন্যান্য দেশের ক্যারিয়ারগুলো কিন্তু যথেষ্ট বড় এবং ভারী।

Read More